স্বামী-শিশুসন্তান রেখে প্রেমিকের বাড়িতে গৃহবধূর অনশন

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে বিয়ের দাবিতে প্রেমিক রাজিবের (৩৫) বাড়িতে অনশনে বসেছেন দুই সন্তানের জননী (২৫)। উপজেলার উত্তর চরবংশী ইউনিয়নের খাসেরহাট এলাকার হাওলাদার বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। ওই গৃহবধূর বাড়ি ভোলার চরফ্যাশনে।

এ নিয়ে মঙ্গলবার সকালে কয়েকজন সাংবাদিক এলাকায় উপস্থিত হলে জনসাধারণের মধ্যে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। এ সময় প্রেমিক রাজিবের বাড়িতে ভিড় জমান এলাকাবাসী।

জানা যায়, ঢাকার কালীগঞ্জে ব্যবসায়ী স্বামী ও দুই সন্তান নিয়ে ৪ বছর ধরে ভাড়া বাসায় বসবাস করছিলেন ওই গৃহবধূ। তাদের পাশের বাসায় ভাড়া থাকতেন রাজিবের দুই ফুফু ও তাদের পরিবার। রাজিব সানসিল্ক কোম্পানির কেরানীগঞ্জের মাঠকর্মী ছিলেন।

ফুফুর বাসায় আসা-যাওয়ার ফলে গত দুই বছর ধরে রাজিবের সঙ্গে ওই গৃহবধূর পরকীয়া সম্পর্ক গড়ে উঠে। এ কারণে তার সঙ্গে স্বামীর বিরোধ দেখা দেয়। পরে রাজিব করোনার সময় চাকরি ছেড়ে গ্রামে চলে আসেন।

এ অবস্থায় গত পাঁচ দিন আগে ওই নারী তার স্বামী, ছয় বছরের ছেলে ও আট বছরের মেয়েকে রেখে প্রেমিক রাজিবের রায়পুরের খাসেরহাট গ্রামের বাড়িতে আসেন। কিন্তু রাজিব ও তার অভিভাবক ওই গৃহবধূকে তাড়িয়ে দেয়। নিরুপায় হয়ে বিচার ও বিয়ের দাবি জানিয়ে লক্ষ্মীপুরে র‌্যাবের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন তিনি।

অভিযোগটি গ্রহণ করে র‌্যাব উত্তর চরবংশী ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে ওই গৃহবধূকে পাঠায়। চেয়ারম্যান গত শনিবার সন্ধ্যায় রাজিবের অভিভাবককে ইউপি কার্যালয়ে ডেকে বিয়ে করে ওই গৃহবধূকে ঘরে তুলে নিতে নির্দেশ দেন। চেয়ারম্যানের নির্দেশনা না মেনে রাজিব ও অভিভাবকরা বাড়ি চলে যান। পরে বিয়ে হবে বলে চেয়ারম্যান ওই নারীকে রাজিবের বাড়িতে পাঠিয়ে দেন। গত পাঁচ দিন ধরে ওই গৃহবধূ প্রেমিক রাজিবের বাড়িতে অবস্থান করছেন।

ওই নারী বলেন, গত দুই বছর ধরেই রাজিবের সঙ্গে আমার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। স্বামী আমাকে তালাক দেয়ায় বিয়ের প্রস্তাব দেয়া হলেও রাজিব আমাকে বিয়ে করছে না। তাই আমি র‌্যাবের মাধ্যমে ইউপি চেয়ারম্যানকে জানিয়ে রাজিবের বাড়িতে অবস্থান করছি। শনিবার আমাদের বিয়ের কথা থাকলেও রাজিব বাড়ি থেকে লাপাত্তা। আমার দাবি, রাজিবসহ তার পরিবারের লোকজন বিয়ের বিষয়টি সুরাহা দিতে হবে। তা না করা পর্যন্ত অনশন চলবে বলে জানান ওই প্রেমিকা।

এ বিষয়ে উত্তর চরবংশী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল হোসেন বলেন, লক্ষ্মীপুরের র‌্যাব ভোলার চরফ্যাশনের গৃহবধূকে আমার কাছে পাঠায়। বিয়ে করে ঘরে তুলে নিতে রাজিব ও তার অভিভাবককে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তারা দুই দিন সময় নিয়েছিল কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো খোঁজখবর নাই। আবারও চেষ্টা করা হবে।

Updated: March 2, 2021 — 2:08 pm

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *