হাতিয়ায় করোনা আক্রান্ত ইমাম, মসজিদ লকডাউন 

করোনা সন্দেহে নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলার একজন ইমামের  ৩ মে নমুনা সংগ্রহ করে পাঠানো হয়েছে। ১০ মে ফলাফল এসেছে পজেটিভ। বিকালে এ সংবাদ নিশ্চিত হয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে তাকে মোবাইলে বিষয়টি অবহিত করার চেষ্টা করা হয় বার বার। কিন্তু সে মোবাইল রিসিভ না করে কিছু সময় পর উক্ত মোবাইলে কল করে জানালেন তিনি মসজিদে নামাজের ইমামতি করেছিলেন। এ সংবাদ পেয়ে সাথে সাথে প্রশাসনের লোকজন গিয়ে ইমামসহ মসজিদটি লকডাউন করে দেয়। নোয়াখালী দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ার বুড়িরচর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের ঘটনা এটি।

আক্রান্ত রোগী মসজিদের ঈমাম (২২) জানান, নমুনা পাঠানোর ৪দিন পর কেউ একজন মোবাইলে তাকে জানায় তার করোনা নেই। তার পর থেকে সে মসজিদের ইমামতি কর আসতেছে। এদিকে রবিবার রাতেই মসজিদটি লকডাউন করে সেই মসজিদেই তাকে আইসোলেশনে রাখার ব্যবস্থা করে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো: সারোয়ার সালাম।

হাতিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিক্যাল অফিসার ডা: নিজাম উদ্দিন মিজান জানান, রাতে রোগীর বর্তমান শারীরিক অবস্থা দেখে ব্যবস্থাপত্র দেওয়া হয়। এছাড়া গত কয়েকদিন তার সংস্পর্শে আসা লোকজনকে চিহ্নিত করে নমুনা সংগ্রহ করার সিদ্বান্ত হয়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানাযায়, উপসর্গ নিয়ে আসার পর কারো নমুনা সংগ্রহ করা হলে তাকে বাড়ীতে কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়। কিন্তু এ নির্দেশ অমান্য করলে তাকে আইনের আওতায় এনে জরিমানা করছে প্রশাসন। এ ক্ষেতে নমুনা দেওয়া রোগীর সংখ্যা বেশি হওয়ায় প্রশাসনের পক্ষে সব রোগীর চলাচল নিয়ন্ত্রন করা সম্বব হয় না।

উল্লেখ্য নোয়াখালীর হাতিয়াতে প্রথম থেকে ১০ মে পর্যন্ত ১শত ৪৯জনের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে। ফলাফল এসছে ১শত ২৩ জনের। এর মধ্যে পজেটিভ এসেছে ৩ জনের বাকিদের নেগেটিভ। এছাড়া হাতিয়া থেকে বাহিরে যাওয়ার পর ৩জন কেরানা আক্রান্ত হয়েছে।

Updated: May 11, 2020 — 8:43 am

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *